Tuesday , May 21 2019
Home / অন্যান্য / নড়াইলে রোহিঙ্গাকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের এস.আই.আমির সোপর্দ

নড়াইলে রোহিঙ্গাকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের এস.আই.আমির সোপর্দ

উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■ বুধবার (১৫,মে) ২৭৪\ নড়াইল সদরের হিজলডাঙ্গা গ্রামে রোহিঙ্গা সন্দেহে একজনকে
পিটিয়েছে এলাকাবাসী। বুধবার(১৫মে) দুপুরে পুলিশ তাকে জনরোষ থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করে।
চিকিৎসাশেষে ঐ রোহিঙ্গা কে নড়াইল সদর থানায় আটক রাখা হয়েছে। উদ্ধারকারী পুলিশ কর্মকর্তা নড়াইল সদর থানার
এস.আই.আমির, জানায়,রোহিঙ্গা সন্দেহে একজনকে গনপিটুনি দিচ্ছে এমন খবর পেয়ে ঘটনাস্থল গিয়ে আহত অবস্থায় মুলিয়া
বাজার থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। রোহিঙ্গা সন্দেহে আটক ব্যক্তিস নিজের নাম বলছে জসিম, তার বাবার নাম সাহেব। কক্সবাজার
রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে কাজের খোজে বের হয়েছে বলে জানায় সে।
এলাকাবাসী জানায়,যশোর সাতক্ষীরা সহ দেধের বিভিন্ন জায়গায় রোহিঙ্গারা শিশু পাচার করছে এমন খবরে পুরো এলাকা আতঙ্কিত।
এই অবস্থায় বুধবার সকালে হিজলডাঙ্গা গ্রামে অপরিচিত একজনকে ঘুরতে দেখে তার নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করলে ভালো কোন উত্তর
দিতে না পারায় এলকার লোকেরা ঐ রোহিঙ্গা কে পিটিয়েছে। এ ব্যাপারে নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, পিপিএম
(বার), নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়কে জানান, নড়াইল সদরের হিজলডাঙ্গা গ্রাম এলাকায় রোহিঙ্গা
ছেলেধরা আতঙ্কের মধ্যে একজন রোহিঙ্গাকে পেয়ে কয়েক হাজার মানুষ হামলে পড়েছিলো। আহত ব্যক্তিকে চিকিৎসা শেষে থানা
হেফাজতে আনা হয়েছে। বর্তমানে নড়াইলের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থা খুবই সন্তোষজনক। সকলে মিলে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন
করলে জনগণের সেবার মান আরও উন্নত হবে। যেহেতু মানুষের বিপদের সময়ের প্রধান আশ্রয়স্থল হলো পুলিশ সেহেতু পুলিশকে তার
কাজের প্রতি আরও আন্তরিক হতে হবে। উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি। ছবি সংযুক্তউজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি■ বুধবার (১৫,মে) ২৭৪\ নড়াইল সদরের হিজলডাঙ্গা গ্রামে রোহিঙ্গা সন্দেহে একজনকে
পিটিয়েছে এলাকাবাসী। বুধবার(১৫মে) দুপুরে পুলিশ তাকে জনরোষ থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান করে।
চিকিৎসাশেষে ঐ রোহিঙ্গা কে নড়াইল সদর থানায় আটক রাখা হয়েছে। উদ্ধারকারী পুলিশ কর্মকর্তা নড়াইল সদর থানার
এস.আই.আমির, জানায়,রোহিঙ্গা সন্দেহে একজনকে গনপিটুনি দিচ্ছে এমন খবর পেয়ে ঘটনাস্থল গিয়ে আহত অবস্থায় মুলিয়া
বাজার থেকে তাকে উদ্ধার করা হয়। রোহিঙ্গা সন্দেহে আটক ব্যক্তিস নিজের নাম বলছে জসিম, তার বাবার নাম সাহেব। কক্সবাজার
রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে কাজের খোজে বের হয়েছে বলে জানায় সে।
এলাকাবাসী জানায়,যশোর সাতক্ষীরা সহ দেধের বিভিন্ন জায়গায় রোহিঙ্গারা শিশু পাচার করছে এমন খবরে পুরো এলাকা আতঙ্কিত।
এই অবস্থায় বুধবার সকালে হিজলডাঙ্গা গ্রামে অপরিচিত একজনকে ঘুরতে দেখে তার নাম ঠিকানা জিজ্ঞাসা করলে ভালো কোন উত্তর
দিতে না পারায় এলকার লোকেরা ঐ রোহিঙ্গা কে পিটিয়েছে। এ ব্যাপারে নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, পিপিএম
(বার), নড়াইল জেলা অনলাইন মিডিয়া ক্লাবের সভাপতি উজ্জ্বল রায়কে জানান, নড়াইল সদরের হিজলডাঙ্গা গ্রাম এলাকায় রোহিঙ্গা
ছেলেধরা আতঙ্কের মধ্যে একজন রোহিঙ্গাকে পেয়ে কয়েক হাজার মানুষ হামলে পড়েছিলো। আহত ব্যক্তিকে চিকিৎসা শেষে থানা
হেফাজতে আনা হয়েছে। বর্তমানে নড়াইলের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থা খুবই সন্তোষজনক। সকলে মিলে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন
করলে জনগণের সেবার মান আরও উন্নত হবে। যেহেতু মানুষের বিপদের সময়ের প্রধান আশ্রয়স্থল হলো পুলিশ সেহেতু পুলিশকে তার
কাজের প্রতি আরও আন্তরিক হতে হবে। উজ্জ্বল রায়, নড়াইল জেলা প্রতিনিধি। ছবি সংযুক্ত

About RASEL RASEL

Check Also

টাঙ্গাইলে সরকার নির্ধারিত মূল্য ধান সংগ্রহ কার্যক্রম চলছে

 টাঙ্গাইলে বিভিন্ন উপজেলায় সরকার নির্ধারিত মূল্য ১ হাজার ৪০ টাকায় প্রতি মণ দরে ধান সংগ্রহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *